রক্তদানের সুফল ও কুফল
রক্তদানের সুফল ও কুফল

রক্তদানের সুফল ও কুফল

5/5 - (1 vote)

রক্তদানের সুফল ও কুফল

রক্তদান একটি জনসেবামূলক কর্মসূচি। এটি একটি মানবদরদী কাজ।অনেক ভালো মনের মানুষ রক্ত দিয়ে থাকে অপরের করলাম চিন্তা করে। মানুষই মানুষের পাশে দাঁড়ায়। রক্তদানের মাধ্যমে একজন মানুষ আরেকজন মানুষের জীবন রক্ষা করতে পারে। এই গুণটি সব মানুষের মধ্যে থাকে না। তবে তাদের মধ্যে থাকে তারা আসলেই প্রকৃত মানুষ। রক্তদানের অনেক সুফল ও কুফল রয়েছে। আজকে আমরা রক্তদানের সুফল ও কুফল সম্পর্কে জানব।

প্রথমে সুফল নিয়ে আলোচনা করা যাক

রক্তদানের সুফল ও কুফল

একজন মানুষের দেহে প্রতিনিয়ত রক্ত সৃষ্টি হয়। আমাদের তিন ধরনের রক্ত কণিকা রয়েছে। লোহিত রক্তকণিকা শ্বেত রক্ত কণিকা এবং অনুচক্রিকা।এই তিন প্রকার রক্ত দিয়ে প্রতিনিয়ত নতুনভাবে উৎপন্ন হচ্ছে এবং সেইসাথে ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে। অর্থাৎ আমাদের শরীরে যে রক্ত বর্তমান তা নতুন ভাবে সৃষ্ট রক্ত। একজন মানুষ যখন রক্তদান করে তখন তার শরীরে আবার নতুন করে রক্ত সৃষ্টি হয়।

রক্তদান করলে শরীরের রক্ত কোনভাবেই কমে যায় না। বরং আমাদের দেহে প্রতিনিয়ত নতুন নতুন রক্ত উপাদান সৃষ্টি হয়। একজন মানুষ রক্তদান করলে অপর মানুষের তার কাজে লাগতে পারে। নানারকম দুর্ঘটনায় পড়ে মানুষের রক্তের দরকার হয়। কোন দুর্ঘটনায় অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ হলে একজন মানুষের জীবনের ঝুঁকি সৃষ্টি হয়।এমন অবস্থায় হাসপাতালে জরুরি ভিত্তিতে রক্তের প্রয়োজন হয়।কোন জনদরদি মানুষ যদি আগে থেকেই রক্তদান করে থাকে তাহলে তা হাসপাতালে সংরক্ষিত থাকে। উক্ত রক্ত অসুস্থ ব্যক্তির জীবন বাঁচাতে কাজে লাগে।

একজন মানুষ রক্ত দান করার পর কিছু ফল খেলে যেমন আপেল, ডালিম, কলার এ ধরনের ফল খেলে সাথে সাথে প্রচুর পরিমাণে রক্ত উৎপন্ন হয়। তাই রক্তদান মানুষের শরীরের কোন ক্ষতি ঘটায় না।বরং আরেকজন মানুষের জীবন রক্ষা করাই ভূমিকা রাখা যায়। জরুরী ভিত্তিতে কারো রক্তের প্রয়োজন হলে একজন মানুষের অবশ্যই এগিয়ে আসা উচিত। আমাদের মধ্যে অনেক মানুষ প্রতিমাসে নিয়মিত একবার করে রক্ত দান করে।

প্রতিমাসে একবার রক্তদান করলে শরীরের তেমন কোন ক্ষতি হয় না। সেই সাথে একজন মানুষের উপকারে আসা যায়। রক্তদান করলে মানুষের শরীরে অতি দ্রুত নতুন রক্তের সৃষ্টি হয় ফলে মানুষের শরীরে রোগ জীবাণু মুক্ত সম্পূর্ণ নতুন রক্ত লাভ করে। তাই রক্তদান একটি মূল্যবান কর্মসূচি। আমাদের মধ্যে সব সুস্থ মানুষের উচিত প্রতি মাসে একবার রক্ত দান করা।

রক্তদানের সুফল ও কুফল

এছাড়া রক্তদানের কিছু ক্ষতিকর দিক এর আশঙ্কা রয়েছে

আমাদের মধ্যে অনেকেই মাদকাসক্ত। অনেক মানুষই ড্রাগ নিয়ে থাকে। ফলে তাদের রক্ত ক্ষতিকর নিকোটিন যুক্ত হয়ে যায়। নিকোটিন মানুষের শরীরে ক্যান্সার সৃষ্টি করে। অনেক মাদক আসক্ত মানুষ মাদক কেনার টাকা জোগাড় করতে পারে না। ফলে তারা অর্থের বিনিময়ে রক্তদান করে থাকে। তাদের রক্ত অত্যন্ত ক্ষতিকর।কোন মানুষ অজ্ঞাতবশত সেই রক্ত গ্রহণ করলে তার শরীরে ক্যান্সার সৃষ্টির আশঙ্কা থাকে।

মাদকাসক্ত ব্যক্তি নিজের প্রয়োজনেই রক্তদান করে। কারণ মাদকাসক্ত ব্যক্তি মাদকের উপর খুবই দুর্বল হয় এবং প্রায় নিজের সর্বস্ব ব্যয় করে ফেলে শুধুমাত্র মাদক দ্রব্য কেনার জন্য। তাদের ক্ষতিকর রক্ত জরুরী ভিত্তিতেকোন রোগী গ্রহণ করলে তার শরীরে খারাপ রক্ত মিশে যায়। এটি তার জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকর। এছাড়া অতিরিক্ত রক্তদান করলে দেহের পুষ্টি শূন্যতা হতে পারে। আমাদের জন্য সবচেয়ে প্রয়োজনীয় উপাদান হলো রক্ত। রক্ত এক ধরনের তরল যোজক টিস্যু

আমাদের দেহকে বাঁচিয়ে রাখার জন্য রক্ত প্রধান ভূমিকা পালন করে। অতিরিক্ত রক্ত দান করলে দেহে রক্তশূন্যতা হতে পারে যা অ্যানিমিয়া নামে পরিচিত। এছাড়া কোন দুর্বল ব্যক্তি রক্তদান করলে তার মৃত্যু পর্যন্ত ঘটতে পারে। কারণ অসুস্থ ব্যক্তির শরীর প্রাকৃতিকভাবেই দুর্বল। এমন অবস্থায় সেই রক্তদান করলে তার শরীরে রক্তের ঘাটতি সৃষ্টি হবে। ফলে অতিরিক্ত রক্ত শূন্যতা জনিত কারণে তার মৃত্যু ঘটতে পারে।

তাই রক্ত দান করতে হবে অবশ্যই সুস্থ সবল ও স্বাভাবিক মানুষের। এছাড়া আমরা অনেকেই রক্তের গ্রুপ সম্পর্কে অবগত নই। যেমন ও রক্তের গ্রুপ যুক্ত মানুষ কেবল মাত্র ও – গ্রুপের রক্ত গ্রহণ করতে পারে। রক্ত গ্রহণের ক্ষেত্রে রোগ সম্পর্কে অবগত হতে হবে। গ্রুপ সম্পর্কে অবগত না হয় রক্ত গ্রহণ করলে সেই রক্ত আমাদের শরীরে নানা রকম বিরূপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করতে পারে।

রক্তদানের সুফল ও কুফল

যেমন বিকলাঙ্গ সন্তান জন্মদান, চুলকানি,ক্যান্সার জাতীয় সমস্যা ইত্যাদি সৃষ্টি করতে পারে। জন্য রক্তদানের মতো ভালো কর্মসূচিকে সুস্থ সবল মানুষের জন্য উপযুক্ত করতে হবে। মাদকে আসক্ত কোন ব্যক্তির রক্ত গ্রহণ করা যাবে না। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের এ ব্যাপারে সতর্ক হতে হবে যেন কোন মাদকাসক্ত ব্যক্তির রক্ত কোন সুস্থ ব্যক্তির দেহে চালনা করা না হয়। আমাদের সকলকে এগিয়ে আসতে হবে অসুস্থ মানুষের জীবন বাঁচাতে। এবং অবশ্যই মাদক থেকে দূরে থাকতে হবে।এতে করে আমরা একটি সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ সমাজ গঠনে সক্ষম হব।

আরো জানতে

রোগী পছন্দ হলে যৌনতায় লিপ্ত হতেন মাদক নিরাময় কেন্দ্রের মালিক বাঁধন

About bdbarguna24

Check Also

প্রতিদিন কলা খেলে যে সকল উপকার হবে

Rate this post প্রতিদিন কলা খেলে যে সকল উপকার হবে আমাদের দৈনন্দিন জীবনে কলা একটি …

One comment

  1. Pingback: ব্যর্থতা কাটিয়ে জীবনে সফল হওয়ার পরামর্শ - BD BARGUNA 24

Leave a Reply Cancel reply